নতুন ভোটারদের ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পাওয়ার সহজ উপায়

নতুন ভোটারদের ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পাওয়ার সহজ উপায়

যারা নতুন ভোটার হয়েছেন এবং এখনো জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পাননি এমনকি এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পর্যন্ত পননি তারা খুব সহজে নির্বাচন অফিসে না গিয়ে নিজেই নিজের মোবাইল অথবা কম্পিউটার থেকে স্মার্ট এনআইডি কার্ডের নম্বর পেতে পারেন এবং নিজের প্রয়োজন মেটাতে পারেন। নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ডের/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পাওয়া খুবই সহজ। তাছাড়া আপনার যদি মোবাইল অথবা কম্পিউটার না থাকে অথবা আপনি যদি ইন্টারনেট ব্যবহার না করেন তাহলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে এমন কোন কম্পিউটার এর দোকান/প্রতিষ্ঠান থেকেও আপনার এনআইডি কার্ডের/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর সংগ্রহ করতে পারবেন মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যেই।

অনলাইন থেকে স্মার্ট এনআইডি কার্ডের/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পেতে হলে আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটারে থেকে একটি ব্রাউজার ওপেন করবেন এবং ভিজিট করবেন services.nidw.gov.bd। দেখবেন নিচের ছবির মতো একটি ওয়েবসাইট ওপেন হয়েছে।

নতুন ভোটারদের এনআইডি নম্বর


এটি বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট। এই সাইট থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র/এনআইডি কার্ড সংক্রান্ত সেবা পাওয়া যায়। ছবিতে ভোটার তথ্য নামক মেনুর উপর ক্লিক করলে নিচের ছবির মতো একটি ফরম ওপনে হবে।

ফরম নম্বর দিয়ে ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর দেখুন

আপনি যদি নতুন ভোটার হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার কাছে একটি নিবন্ধন স্লিপ আছে এবং ওই স্লিপের ডান পাশে ৮/৯ সংখ্যার একটি নম্বর আছে।

এখন ছবিতে যেমন দেখতে পাচ্ছেন প্রথমে ফরম নম্বরটি লিখতে হবে। তারপরের ঘরে জন্ম তারিখ লিখতে হবে।

তারপর ক্যাপচা লিখতে হবে। ক্যাপচায় যে অক্ষর বা সংখ্যা থাকবে সেটি হুবহু লিখতে হবে ছোট হাতের অক্ষর ও বড় হাতের যেটা যেভাবে দেখাবে সেভাবেই লিখতে হবে। ভুল হলে হবে না।


সর্বশেষ ভোটার তথ্য দেখুন বাটনে ক্লিক করবেন।
  
ভোটার তথ্য দেখুন বাটনে ক্লিক করার পর নিচের ছবির মত করে আপনার ভোটার নম্বর, ভোটার সিরিয়াল নং, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর (স্মার্ট কার্ডের নম্বর), পিন নম্বর এবং ভোটার এলাকার নাম দেখাবে।
ফরম নম্বর দিয়ে ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর দেখার উপায়

এনআইডি নম্বর বা ভোটার আইডি কার্ডের নম্বরটি ১০ সংখ্যার হবে। পরবর্তীতে যখন আপনি এনআইডি কার্ড বা ভোটার আইডি কার্ড পাবেন তখন কার্ডের উপরে এই ১০ সংখ্যার স্মার্ট এনআইডি নম্বরটি থাকবে। এখন আপনি আপনার প্রয়োজন মত এই ১০ সংখ্যার স্মার্ট এনআইডি নম্বরটি ব্যবহার করতে পারবেন অথবা ১৭ সংখ্যার পিন নম্বরটিও ব্যবহার করতে পারবেন। তবে ১০ সংখ্যার এনআইডি নম্বরটি ব্যবহার করাই ভালো। কারণ ভবিষ্যতে এনআইডি কার্ডের উপর ১০ সংখ্যার নম্বরটিই লেখা থাকবে।

নতুন ভোটারগণ তাদের এনআইডি নম্বর ও জন্ম তারিখ ব্যবহার করে ওই একই ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করে এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। এনআইডি কার্ডটি পিডিএফ ফরমেটে ডাউনলোড হবে। ডাউলোড করে কালার প্রিন্টারের মাধ্যেমে প্রিন্ট করে লেমিনেটিং করে ব্যবহার করতে পারবেন। সর্বত্রই এই এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ডটি ব্যবহার করা যাবে। পরবর্তীতে অফিস থেকে নতুন ভোটারদের স্মার্ট এনআইডি কার্ড/স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে। যতদিন না পর্যন্ত স্মার্ট এনআইডি কার্ড হাতে পাবেন ততদিন এই পেপার লেমিনেটেডেট কার্ডটি ব্যবহার করবেন। 

নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ডের/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর পাওয়া নিয়ে যদি কারো কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টস করে জানাবেন। আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো। লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন