নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড পাওয়ার সহজ উপায়।

নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড পাওয়ার সহজ উপায়।

আপনি যদি নতুন ভোটার হয়ে থাকেন এবং এখনো এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড না পেয়ে থাকেন তাহলে মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যেই আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটার দিয়ে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট থেকে নিজেই নিজের ভোটার আইডি কার্ড দেখতে পারবেন এবং ডাউনলোড করতে পারবেন একদম বিনা মূল্যে। নতুন ভোটারদের জাতীয় পরিচয়পত্র/ভোটার আইডি কার্ড পাওয়ার উপায় খুবই সহজ।

নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড পাওয়ার উপায়

অনলাইন থেকে এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে হলে আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। এবার আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটার থেকে একটি ব্রাউজার (গুগল ক্রোম / ফায়ারফক্স) ওপেন করবেন এবং এড্রেস বারে লিখবেন services.nidw.gov.bd এবং এন্টার বাটন প্রেস করবেন। দেখবেন নিচের ছবির মতো একটি ওয়েবসাইট ওপেন হয়েছে।

নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড পাওয়ার উপায়

এখান থেকে রেজিস্ট্রার বাটনে ক্লিক করলে নিচের ছবির মতো একটি পেজ আসবে।

নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড পাওয়ার উপায়

এই পেজের নিচে রেজিস্ট্রেশন ফরম পূরণ করতে চাই বাটনে ক্লিক করতে হবে। তাহলে নিচের ছবির মতো একটি পেজ আসবে।
 
ভোটার আইডি কার্ডের জন্য রেজিস্ট্রেশন

উপরের ছবির বাম পাশে রেজিস্ট্রার করুন (রেড মার্ক) বাটনে ক্লিক করতে হবে। তাহলে নিচের ছবির মতো একটি পেজ আসবে।

ভোটার আইডি কার্ডের রেজিস্ট্রেশন ফরম পুরন

১। এই ঘরে আপনার এনআইডি কার্ডের/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর দিতে হবে। ১৭ সংখ্যা অথবা ১০ সংখ্যা একটা দিলেই হবে। তবে ১৩ সংখ্যার আইডি নম্বর দিলে হবে না। আপনার কাছে যদি ১৩ সংখ্যার এনআইডি নম্বর/ভোটার আইডি নম্বর থাকে তাহলে নম্বরের পূর্বে আপনার জন্ম সাল লিখে দিবেন তাহলে ১৭ সংখ্যার এনআইডি নম্বর/ভোটার আইডি নম্বর হয়ে যাবে। যারা নতুন ভোটার এবং এনআইডি/ভোটার আইডি নম্বর নেই তারা এনআইডি নম্বর পাওয়ার উপায় দেখে নেবেন।

২। জন্ম তারিখের ঘরে জন্ম তারিখ দিতে হবে। প্রথমে দিন তারপর মাস তারপর বছর টাইপ করতে হবে।

৩। এখানে ক্যাপচা টাইপ করতে হবে। ক্যাপচায় অক্ষর বড়-ছোট যেভাবে দেখা যাবে সেভাবেই লিখতে হবে। ভুল হলে হবে না।

৪। সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর নিচের ছবির মতো একটপি পেজ আসবে।

ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা

এখানে আপনার বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানার বিভাগ, জেলা এবং উপজেলা সিলেক্ট করতে হবে। বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা একই না হয়ে যদি ভিন্ন হয় তাহলে তা সঠিকভাবে সিলেক্ট করতে হবে। ভুল ঠিকানা দিলে একাউন্ট লক হয়ে যেতে পারে। তারপর পরবর্তী বাটনে ক্লিক করতে হবে তাহলে নিচের ছবির মতো ধাপে ধাপে একটি করে পেজ আসবে।

ভোটার আইডি কার্ড জন্য একাউন্ট তৈরী
 
১ নং ছবিতে মোবাইল নম্বর পরিবর্তন বাটনে ক্লিক করলে ২ নং ছবির মতো পেজ আসবে সেখানে মোবাইল নম্বর দিয়ে বার্তা পাঠান বাটনে ক্লিক করলে ৩ নং ছবির মতো পেজ আসবে এবং আপনার মোবাইল নম্বর ৬ সংখ্যার একটি যাচাইকরণ কোড পাঠানো হবে। সেই কোডটি এখানে টাইপ করে বহাল বাটনে ক্লিক করতে হবে। তাহলে নিচের মতো একটি পেজ আসেব।

NID Wallet এর মাধ্যমে ভোটারের একাউন্ট তৈরী
 
এখন পরবর্তী ধাপে যাওয়ার জন্য আপনার মোবাইলে NID Wallet নামের একটি এ্যাপ ইনিস্টল করা থাকতে হবে। যদি NID Wallet এ্যাপ আপনার মোবাইলে না থাকে তাহলে Play Store এ গিয়ে NID Wallet সার্স করলে App টি পেয়ে যাবেন।
নতুন ভোটার আইডি কার্ড দেখার নিয়ম

NID Wallet app টি Install হওয়ার পর ওপেন করবেন। আপনার ক্ষেত্রে উপরের ছবির মত যে QR Code টি দেখা যাবে সেটি স্ক্যান করবেন। তারপর নিচের ছবির মত ফেস ভেরিফাই করার জন্য বলবে। 
 
Nid wallet verification for nid card download
 
Start Face Scan অপশনে ক্লিক করবেন। তারপর দেখবেন আপনার মোবাইলের ফন্ট ক্যামেরা ওপেন হবে। প্রথমে সোজাভাবে তাকাবেন Face Scan হলে মুখ বামে একবার ঘোরাবেন তারপর মুখ ডানে ঘোরাবেন। এভাবে তিন বার ফেস স্ক্যান করা লাগবে। ফেস স্ক্যান সঠিকভাবে হলে ২ নং নমুনা ছবির মত ফেস এর উপর টিক চিহ্ন দেখাবে। NID Wallet এর কাজ এ পর্যন্তই। 
 
এর পর দেখবেন ব্রাউজার রিফ্রেস হয়ে নিচের ছবির মতো আপনার ছবি দেখা যাবে এবং পাসওয়ার্ড সেটআপ করার জন্য বলবে। আপনি চাইলে আপনার পছন্দমত একটি পাসওয়ার্ড দিয়ে একাউন্টটি সিকিউর করতে পারেন অথবা এড়িয়ে যেতে পারেন। তবে পাওয়ার্ডটি সেট-আপ করলে অবশ্যই পাওয়ার্ডটি সংরক্ষণ করবেন।

New voter Nid card download

পাসওয়ার্ড সেটআপ করার জন্য সেট পাসওয়ার্ড বাটনে ক্লিক করবেন। এখানে প্রথমে একটি ইউজারনেম দেয়ার জন্য বলবে, আপনি চাইলে এখানে আপনার ইউজার নেম দিতে পারেন না দিতে চাইলে ক্ষতি নেই। তারপর একটি পাসওয়ার্ড টাইপ করে পরের ঘরে সেটি পুনারয় লিখবেন। তারপর আপডেট বাটনে ক্লিক করবেন। তাহলেই তৈরী হয়ে যাবে আপনার এনআইডি কার্ডের একাউন্ট এবং নিচের ছবির মত আপনার সামনে শো করবে।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড পদ্ধতি

এখান থেকে রেড মার্ক করা ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করলে আপনার এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড হবে। যা দেখতে নিচের ছবির মত দেখাবে।

নতুন ভোটারদের ভোটার আইডি কার্ড দেখুন
কার্ডটি পিডিএফ ফাইল ফরমেটে থাকবে। এই পিডিএফ ফাইলটি নিকটস্থ কোন দোকান/প্রতিষ্ঠান থেকে কালার (রঙ্গিন) প্রিন্ট করে লেমিনেটিং করে নিতে হবে। আপনি নতুন ভোটার বিধায় আপনার জন্য ফ্রি তে নির্বাচন কমিশন এই কার্ডটি দিবে। আপনি বার বার এই এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে চাইলে বার বার ডাউনলোড নাও হতে পারে। তাই পিডিএফ ফাইলটা সংরক্ষণ করুন। দ্বিতীয়বার ডাউনলোড করতে হলে ভোটার আইডি কার্ড উত্তোলনের ফি জমা দিয়ে ডাউনলোড করতে হতে পারে।

যারা পুরাতন ভোটার তারাও এই একই পদ্ধিতে মূল জাতীয় পরিচয়পত্রের অনলাইন কপি সংগ্রহ করতে পারবেন তাবে রকেট/বিকাশ/অনলাইন ব্যাংকিং এর মাধ্যমে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। তারপর রিইস্যু অপশনে গিয়ে আবেদন দাখিল করতে হবে। এক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আপনার আবেদনটি অনুমোদন করলেই অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।
 
নতুন ভোটারদের এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ড পাওয়ার উপায় সম্পর্কে যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টস করে জানাবেন। আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো। লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করার অনুরোধ রইলো। ধন্যবাদ...।
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন