Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার নিয়ম কি?

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার নিয়ম কি?

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার নিয়ম

Nid Card সংশোধনের আবেদন করার পরে যদি মনে হয় আপনার Nid Card সংশোধন করা লাগবে না। তাহলে কি করবেন? অবশ্যই Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করতে হবে। কিন্ত কিভাবে করবেন Nid সংশোধনের আবেদন বাতিল? আপনি তো যাবতীয় কাগজপত্র দিয়ে আবেদন সাবমিট করে ফেলেছেন এবং আপনার আবেদনের কার্যক্রম গ্রহণের ম্যাসেজও এসে গেছে। হ্যা, অনেকেই এমন সমস্যার মুখোমুখি হয়ে থাকেন। তবে এতে খুব বেশি চিন্তার কারণ নেই। আপনি চাইলে খুব সহজেই আপনার Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করতে পারবেন। পড়তে থাকুন সঠিক তথ্য জানতে পারবেন।


যে কোন কারনেই হোক Nid Card সংশোধনের আবেদন করার পর দেখা যায় এনআইডি সংশোধন না করলেও হবে। শুধু শুধু Nid Card সংশোধনের জন্য আবেদন করা হয়ে গেছে। এরুপ পরিস্থিতিতে অনেকেই হতাশায় পড়ে যায় এই ভেবে যে, আবেদন অনুমোদন হয়ে গেলে তো  আরো এক ঝামেলা সৃষ্টি হয়ে যাবে। 

তখন হয়তো আপনি নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করেন। সেখান থেকে অবশ্যই আপনাকে পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্ত সেই পরামর্শ পেয়ে আরো এক চিন্তায় পড়ে যান। কারণ সেখান থেকে বলা হয় আপনি একটা আবেদন করেন আমরা আপনার Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করে দেবো। কিন্ত আপনি কি আবেদন করবেন কিভাবে করবেন সে বিষয়ে হয়তো ভালো করে বুঝে উঠতে পারেন না। আপনি যদি এমন সমস্যায় পড়ে থাকেন এবং এই লেখাটি পড়তে থাকেন তাহলে অবশ্যই বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং আবেদন ফরমটি ডাউনলোড করতে পারবেন। 

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার জন্য করণীয়:- 

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসার বরাবর একটি আবেদন করতে হবে। আবেদনে উল্লেখ থাকবে আপনি আপনার Nid Card সংশোধনের আবেদন করেছেন এবং সেটি চলমান রয়েছে। কিন্ত বর্তমানে আপনি আপনার Nid Card এর তথ্য সংশোধন করতে ইচ্ছুক নন। তাই Nid সংশোধন আবেদনটি বাতিল করার জন্য মহোদয়ের নিকট আবেদন করবেন। 

আপনি একটি A4 সাইজের সাদা কাগজে হাতে লিখে অথবা কম্পিউটারে টাইপ করে অথবা নিচে দেয়া ডাউনলোড লিংক থেকে ফরমটি ডাউনলোড করে পূরণ করে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের একটি নমুনা নিম্নে দেয়া হলো।


তারিখ: ২৫/০৪/২০২২
বরাবর,
উপজেলা নির্বাচন অফিসার
কালিগঞ্জ, ঝিনাইদহ।
 
বিষয়ঃ Nid Card সংশোধনের আবেদন বাতিল করা প্রসঙ্গে।

 

মহোদয়,

    সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি মোঃ মোশারফ করিম, পিতা: মোঃ শহিদ করিম, গ্রাম/মহল্লা: তেতুলবাড়ী, ডাকঘার: কালিগঞ্জ, উপজেলা: কালিগঞ্জ, জেলা: ঝিনাইদহ। আমি বিগত ২৫/০৪/২০২২ ইং তারিখে অনলাইনের মাধ্যমে আমার এনআইডি কার্ড সংশোধনের আবেদন করেছি যার রেজিস্ট্রেশন নম্বর/এনআইডি নম্বর- ১২৩৪৫৬৭৮৯০। আমার আবেদনটি এখনো অনুমোদন হয়নি পেন্ডিং রয়েছে। এমতাবস্থায় আমি আমার Nid Card সংশোধনের আবেদনটি বাতিল করতে ইচ্ছুক। যে সমস্যার কারণে আমি আমার এনআইডি কার্ডের তথ্য সংশোধন করার জন্য আবেদন করেছিলাম সে সমস্যা সমাধান হয়ে গেছে বিধায় আমার এনআইডি কার্ড সংশোধনের আবেদনটি বাতিল করা প্রয়োজন।

    অতএব, মহোদয়ের নিকট আমার বিনীত প্রার্থনা আমার Nid Card সংশোধনের আবেদনেটি বাতিল করে পুনরায় কার্ডটি ব্যবহারের সুযোগ করে দিতে আপনার সদয় মর্জি হয়। 

 
বিনীত নিবেদক/নিবেদিকা,
মোঃ মোশারফ করিম
Nid নম্বর: ১২৩৪৫৬৭৮৯০
মোবাইল নম্বর: ০১৭০০০০০০০০
 

উপরোক্তভাবে একটি আবেদনপত্র লিখে উপজেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে জমা দিলে তিনি আপনার Nid সংশোধনের আবেদনটি বাতিল করে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। 

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার জন্য আবেদনকারী নিজে উপস্থিত হয়ে আবেদন দাখিল করতে হবে।  এক্ষেত্রে অন্য কেউ গিয়ে আবেদন করলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আপনার আবেদন গ্রহণ নাও করতে পারেন। 

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল করার বিষয়ে যদি কারো কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টস করবেন। আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে চেষ্টা করবো। লেখাটি যদি  ভালো লাগে তাহলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইলো। ধন্যবাদ...!

Nid সংশোধন আবেদন বাতিল ফরম ডাউনলোড

22 মন্তব্যসমূহ

  1. আসসালামুআলাইকম। এ ক্ষেত্রে সংশোধনের জন্য জমা দেয়া ফি কি ফেরত পাওয়া যাবে? ফি অনলাইনে জমা দিয়েছি, রিসিট আছে। সেই রিসিট কি পরবর্তীতে আবার ব্যবহার করা যাবে? জানাবেন।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. না, একবার ফি জমা দিলে সেটা আর ফেরত পাওয়া যাবে না। ফি জমা দিয়ে একবার সংশোধনের আবেদন কর হয়ে গেলে এবং পরবর্তীতে আবার আবেদন করার ক্ষেত্রে ওই ফি গ্রহণযোগ্য হবে না। পুনরায় ফি জমা দিয়ে আবেদন করতে হবে।

      মুছুন
  2. আমি বিকাশে ফি জমা দিয়ে আমার বৈবাহিক অবস্থার তথ্য সংশোধন এর জন্য অনলাইনে আবেদন করেছি। কিন্তু অফিসে ‍গিয়ে এখনও প্রিন্ট কপি ও মানি রিসিট জমা দেই নি। এমতাবস্থায় যদি এই আবেদন বাতিল করতে চাই তাহলেও কি উপরের নিয়মে আবেদন করতে হবে? আর যদি বাতিলের আবেদন করি তাহলে কি জমা দেয়া টাকার রিসিট টা আমি পরবর্তীতে পুনরায় ব্যবহার করতে পারবো?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. অনলাইনে সংশোধনের আবেদন করলে আবেদনের প্রিন্ট কপি ও ফি জমার রশিদ অফিসে জমা দেয়া লাগে না। এখন আপনি যদি সংশোধনের আবেদন বাতিল করতে চান তাহলে উপরোক্ত পদ্ধতিতে নির্বাচন অফিসার বরাবর একটি আবেদন করুন। আবেদন বাতিল করানোর পর জমাকৃত ফি ফেরত পাবেন না এবং পরবর্তীতে ওই ফি কার্যকর হবে না। পুনরায় ফি জমা দিয়ে আবেদন করতে হবে।

      মুছুন
  3. আসসালামু আলাইকুম ভাই
    আমার একটা আবেদন ভুলবশত হয়ে গেছে তাই এখন আমি আমার আইডির নাম সংশোধন করার জন্য আবেদন করতে পারছি না। আবেদন করতে গেলে দেখা যায় আরেকটি আবেদন পেন্ডিং রয়েছে তাই নতুন কোন আবেদন নিচ্ছে না। যে আবেদনটি ভুলবশত হয়ে গেছে সেই আবেদনের কোন নাম্বার নেই আমার কাছে। এমতাঅবস্থা কি করা যায় জানাবেন প্লিজ।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. Nid Card সংশোধনের আবেদন বাতিল করার বিষয়ে বিস্তারিত পরামর্শ এই পোষ্টে উল্লেখ করা হয়েছে। লেখাটি ভালো করে পড়ুন এবং বর্ণিত উপায়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে Nid Card সংশোধনের আবেদন বাতিল করার জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসার বরাবর লিখিত আবেদন করুন।

      মুছুন
    2. আচ্ছালামু আলাইকুম,
      আমি কিছু দিন আগে আইডি কার্ডের নাম সংশোধন করার জন্য আমার লেপটপ থেকে টাইপ করতে ছিলাম, কি টাইপ করতে যেয়ে আমার হাতের সাথে এন্টার কি চাপ পড়ে যায়, এখন আমি দেখতে পাই এবং এ লেখা টা আসে "আপনার একটি আবেদন সংশোধন অবস্থা আছে, আমি কোন ফি জমা করি নাই, পরে আমি আবার কেমনে কেমনে বাতিল করি, এখন দেখতে পাই "আপনার সর্বশেষ আবেদন টা বাতিল হয়েছে, আমার প্রশ্ন হচ্ছে সর্বশেষ বাতিল লেখা টা কি সবসময় থাকবে, আমার কি কোনো সমস্যা হবে, আমি কি সংশোধনের আবেদন করতে পারবো, দোয়া করে জানালে উপকৃত হব ।।

      মুছুন
    3. @Golden Up Golden Down অনলাইনে Nid Card সংশোধনের আবেদন করার সময় কোন একটি ফিল্ড এডিট করে পুনরায় ব্যাক করলে "আপনার একটি আবেদন সংশোধন অবস্থায় আছে" এমন দেখায়। এর মানে এই নয় যে আবেদনটি সাবমিট হয়ে গেছে। যদি এডিট করা অংশ বাতিল করে দেন তাহলে "আপনার সর্বশেষ আবেদনটি বাতিল করা হয়ছে" এমন দেখাবে। এটা কোন সমস্যা না। আপনার Nid Card যদি সংশোধন করতে চান তাহলে আপনি পুনরায় আবেদন করতে পারবেন। তবে খুব সাবধানতার সাথে ভুল হওয়া ফিল্ডগুলো এডিট করবেন। সংশোধনের আবেদন সাবমিট করার পর এখন যে লেখাটি এখন শো করছে সেটি চলে যাবে এবং লেখা থাকবে আপনার সর্বশেষ আবেদনটি পেন্ডিং রয়েছে। সুতরাং চিন্তা করার দরকার নেই। Nid সংশোধনের নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে ভুল হওয়া ফিল্ড সঠিকভাবে এডিট করে আবেদন সাবমিট করে দেন।

      মুছুন
  4. আমার এলাকায় নতুন ভোটার হওয়ার ছবি তোলার কার্যক্রম ১৩ তারিখ থেকে শুরু হবে । এখন আমি অনলাইনে আবেদন করি ফি জমা দিয়ে ১৩ তারিখে ওদের সাথে সংশোধন করতে পারবো কি?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. হালনাগাদে নতুন ভোটারের কার্যক্রম ও Nid Card সংশোধন দুইটা আলাদা বিষয়। Nid সংশোধনের কাজ অফিস থেকে করা হয়। আপনার Nid Card এ যদি ভুল থাকে তাহলে প্রয়োজনীয কাগজপত্রসহ অনলাইনে সংশোধনের আবেদন করে দিন। সবকিছু ঠিক থাকলে দ্রুতই সংশোধন হয়ে যাবে।

      মুছুন
  5. আচ্ছালামু আলাইকুম, স্যার ১মাস আগে ভোটার তথ্যের জন্য শুধু জন্ম নিবন্ধন নিয়ে ছিলো এবং আগামী 13/8/2022, ছবি ফিংগার তুলার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে, আমার প্রশ্ন হচ্ছে সঠিক ভাবে সুদ্ধু ভাবে এন্ট্রির হওয়ার জন্য আমি আগে থেকে অনলাইনে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য অনলাইনে পুরণ করে ফরম টা নিয়ে যেতে পারবো কিনা

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. হালনাগাদে ভোটার হওয়ার ক্ষেত্রে অনলাইনে ফরম পূরন করার দরকার নেই। তথ্যসংগ্রহকারী আপনার নিবন্ধন ফরম পূরণ করে দেবে। ছবি তোলার দিনে নিবন্ধন ফরমটি নিয়ে ভালো করে পড়ে দেখবেন তথ্যগুলো সঠিকভাবে লেখা আছে কি না। যদি কোন তথ্য ভুল থাকে তাহলে সঠিক করে লিখে নেবেন। অপারেটর যখন আপনার তথ্য এন্ট্রি করবে তখন তাকে সতর্কতার সাথে এন্ট্রি করতে বলবেন এবং এন্ট্রি হয়ে গেলে তথ্যের প্রুফ কপি চাইবেন। যদি প্রুফ কপি দেয়ার ব্যবস্থা কেন্দ্রে থাকে তাহলে প্রুফ কপি নিয়ে তথ্যগুলো পুনরায় মিলিয়ে দেখতে পারবেন।

      মুছুন
  6. আচ্ছালামু আলাইকুম, আমার বয়স ১৭ বছর, আমি গতকাল ছবি ও ফিংগারিং দিয়ে আসছি, আমি জানি ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত আইডি কার্ড পাবো না, আমার প্রশ্ন হচ্ছে যে আমার ভোটার স্লিপ দিয়ে অনলাইনে কিছু দেখতে পারবো এখন??

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. নতুন ভোটারদের ছবি তোলার পর তাদের মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে এনআইডি নম্বর প্রেরণ করা হয়। এনআইডি নম্বর পাওয়ার পর নিবন্ধন স্লিপ নম্বর অথবা Nid Number দিয়ে অনলাইন থেকে Nid Card Download করতে পারবেন। তাতে আপনার বয়স ১৮ বছর হোক বা তার কম হোক কোন সমস্যা হবে না Nid Card পাবেন।

      মুছুন
  7. আমি আমার নাম উদ্দীন এইটাকে উদ্দিন এইভাবে সংশোধন অনলাইনে আবেদন করতে বলছিলাম, কিন্তু কম্পিউটার ম্যান উদিদন এভাবে টাইপ করে সাবমিট করে দিয়েছে আমার প্রশ্ন হচ্ছে যদিও উদিদন এভাবে সংশোধন হয় আমি পরে উদ্দিন এইটা সংশোধন করতে পারবো কি না

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. হ্যা পারবেন। অধিক প্রশ্ন থাকলে আমাদের ফেসবুক পেজে ম্যাসেজ করুন।

      মুছুন
  8. নতুন ভোটার জন্য ছবি ফিংগার দিয়েছিলাম, সবার মেসেজ আসছে আমার টা আসে নাই স্লিপ নাম্বার আছে 40 দিন হয়েছে এখনো কোন মেসেজ আসে নাই, কি সমস্যা আমি বুঝতে পারছি না, নির্বাচন অফিস গেলে ওরা বলে আমাদের করার কিছুই নাই, আমার প্রশ্ন হচ্ছে, আমার ফিংগার এর সমস্যা থাকলে বা অন্য কোন সমস্যার কারনে লক হয়ে থাকলে আমি কি করতে পারি বা কিভাবে জানতে পারি

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. উপজেলা পর্যায় থেকে যদি কোন প্রকার হেল্প না পান তাহলে সরাসরি জেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে চলে যেতে পারেন। তার কাছে আপনার সমস্যার কথা বিস্তারিত বলবেন এবং এটাও বলবেন উপজেলা থেকে তাদের কিছু করার নেই এমন কথা বলেছে। আপনার ভোটার তথ্যে কি ধরণের সমস্যা হয়েছে সেটা চেক না করে তো সমাধানের বিষয়ে বলা সম্ভব না। তাই আগে বিস্তারিত জানুন কি ধরণের সমস্যার কারণে ম্যাসেজ আসলো না, তারপর সেটি সমাধানের জন্য পদক্ষেপ নেয়া যাবে।

      মুছুন
  9. জাতীয় পরিচয় পএ সংশোধন আবেদন বাতিল করার জমা দেওয়ার কত দিন পর সেটা বাতিল হবে?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. Nid সংশোধনের আবেদন বাতিল করার জন্য আবেদন করার পর তা কত দিন পর বাতিল হবে সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যায় না। তবে আপনার আবেদনের প্রেক্ষিতে Nid সংশোধনের আবেদন বাতিল অবশ্যই করে দেয়া হবে। আবেদন করার ৫-৭ কর্মদিবসের মধ্যে Nid সংশোধনের আবেদন বাতিল না হলে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসারের সাথে যোগাযোগ করবেন এবং তাকে দ্রুত আবেদনটি বাতিল করে দেয়ার জন্য অনুরোধ করবেন।

      মুছুন
  10. ভোটের আবেদন করার পর এটা কি বাতিল করা যায় না??

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. ভোটের আবেদন বলতে কি বোঝাতে চাচ্ছেন সেটা বুঝতে পারলাম না। আপনি কি নতুন ভোটার হওয়ার আবেদন বাতিল করার কথা বোঝাতে চাচ্ছেন নাকি ভোটার আইডি কার্ড বাতিল করার কথা বলতে চাচ্ছেন?

      মুছুন
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন
নবীনতর পূর্বতন