স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম - স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো - স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করা যায় কি?

স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম - স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো - স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করা যায় কি?

স্মার্ট কার্ড চেক

আপনি কি স্মার্ট কার্ড পেয়েছেন? যদি না পেয়ে থাকেন তাহলে কি স্মার্ট কার্ড চেক করে দেখেছেন আপনার স্মার্ট কার্ড তৈরী হয়েছে কি না? হয়তো আপনি আপনার স্মার্ট কার্ড চেক করে দেখেননি। কারণ অনেকেই আছে তারা জানেন না মুলত স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম কি। কি কি উপায়ে স্মার্ট কার্ড চেক করা যায়, স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো এবং স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করা যায় কি না সে বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রদান করবো। কারণ স্মার্ট কার্ড নিয়ে অনেকেরই ভুল ধারণা রয়েছে। তাই বিস্তারিত তথ্য জানতে পড়তে থাকুন, সঠিক তথ্য জানতে পারবেন।


স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম কি? How To Smart Card Check

খুব সহজ স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম। আপনি ঘরে বসে নিজেই আপনার স্মার্ট কার্ড চেক করে দেখতে পারেন। কোন ভোটারের স্মার্ট কার্ড তৈরী হয়েছে কিনা তা জানার জন্য ৩ টি উপায় বলবো। এখন কথা হলো স্মার্ট কার্ড চেক করে কি তথ্য পাওয়া যায়? স্মার্ট কার্ড চেক করে বক্স নম্বর ও কম্পার্টমেন্ট নম্বর জানা যায়। 

একটি স্মার্ট কার্ডের ব্ক্স এ দশটি কম্পার্টমেন্ট থাকে। কত নম্বর বক্স এর কত নম্বর কম্পার্টমেন্ট এ আপনার স্মার্ট কার্ড আছে সেটি জানা যায়। আর বক্স নম্বর ও কম্পার্টমেন্ট নম্বর জানতে পারলেই নিশ্চিত হওয়া যায় যে স্মার্ট কার্ড তৈরী হয়েছে। স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম তিনটি হচ্ছে-

প্রথমত, যারা নতুন ভোটার এবং যাদের কাছে ভোটার নিবন্ধন স্লিপ আছে তাদের স্মার্ট কার্ড চেক করতে হলে মোবাইল ফোন থেকে একটি ম্যাসেজ পাঠাতে হবে। মোবাইলের ম্যাসেজ অপশনে গিয়ে লিখতে হবে- 

NID<একটি স্পেস দেবেন>ভোটার নিবন্ধন স্লিপের নম্বর দিবেন<একটি স্পেস দেবেন>জন্ম তারিখ দেবেন। তারপর পাঠিয়ে দিতে হবে ১০৫ নম্বরে।


উদাহরণঃ NID 123456789 01-02-1999 তারপর ১০৫ নম্বরে সেন্ট করবেন।

ফিরতি ম্যাসেজে আপনার স্মার্ট কার্ডের বক্স নম্বর ও কম্পার্টমেন্ট নম্বর প্রেরণ করা হবে। আর যদি আপনার স্মর্ট কার্ড তৈরী না হয়ে থাকে তাহলে ম্যাসেজে বলে দেবে আপনার স্মর্ট কার্ড তৈরী হয়নি। 

যাদের কাছে ১০ সংখ্যা বা ১৭ সংখ্যার এনআইডি নম্বর আছে তাদের ক্ষেত্রে স্মার্ট কার্ড চেক করতে হলে মোবাইলের ম্যাসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করতে হবে-

SC<একটি স্পেস দেবেন>NID<একটি স্পেস দেবেন>১০ অথবা ১৭ সংখ্যার এনআইডি নম্বর দেবেন। তারপর পাঠিয়ে দিতে হবে ১০৫ নম্বরে।

উদাহরণঃ  SC NID 5846985780 তারপর ১০৫ নম্বরে সেন্ট করে দেবেন। 

ফিরতি ম্যাসেজে আপনার স্মার্ট কার্ডের বক্স নম্বর ও কম্পার্টমেন্ট নম্বর প্রেরণ করা হবে। আর যদি আপনার স্মর্ট কার্ড তৈরী না হয়ে থাকে তাহলে ম্যাসেজে বলে দেবে আপনার স্মর্ট কার্ড তৈরী হয়নি। 

আরো পড়ুনঃ পুরাতন ভোটার হওয়া সত্ত্বেও যারা স্মার্ট এনআইডি কার্ড পাননি তাদের জন্য করণীয়

দ্বিতীয়ত, ভোটার নিবন্ধন স্লিপ নম্বর অথবা এনআইডি নম্বর নিয়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে বলতে হবে। আমার স্মার্ট কার্ড চেক করে দেন এসেছে কি না। আপনি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে না গিয়ে যদি অন্য যে কোন উপজেলার নির্বাচন অফিসে গিয়ে স্মার্ট কার্ড চেক করে দেয়ার কথা বলেন তাহলে তারাও স্মার্ট কার্ড চেক করে দিতে পারে। যদি তারা সদয় হয়ে স্মার্ট কার্ড চেক করে দেয় তো ভালো, আর না দিলে আপনার সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গেলে অবশ্যই স্মার্ট কার্ড চেক করে দেবে। 


তৃতীয়ত, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে গিয়ে স্মার্ট কার্ড চেক করা যায় এসেছে কি না। অনলাইনে স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়েছে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রয়োজনে ভিজিট করে দেখতে পারেন।

স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো? How To Get Smart Card Online

কোন ভাবেই অনলাইন থেকে স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করা যায় না। তাহলে স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবেন? যদি আপনার স্মার্ট কার্ড তৈরী হয়ে এসে থাকে তাহলে আপনার সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকেই বিতরণ করা হবে। অফিস কর্তৃপক্ষ এলাকার বিভিন্ন জায়গায় ক্যাম্পেইন করে গণহারে স্মার্ট কার্ড বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। গণহারে স্মার্ট কার্ড বিতরণে শেষে অবিতরণকৃত স্মার্ট কার্ডগুলো অফিস থেকেই বিতরণ করা হয়। 

সুতরাং, স্মার্ট কার্ড বিতরণকালে যদি স্মার্ট কার্ড গ্রহণ না করতে পারেন তাহলে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। স্মার্ট কার্ড গ্রহণের সময় অবশ্যই পুরাতন পেপার লেমিনেটিং করা এনআইডি কার্ডটি জমা দেয়া লাগবে।

স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করবো কিভাবে? Smart Card Download


অনেকেই জিজ্ঞাসা করে থাকেন যে, আমার স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করবো কিভাবে বা স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করার উপায় কি? কিন্ত এটা সম্পূর্ণই একটি ভুল ধারণা। কারণ অনলাইন থেকে স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড কখনোই করা যায় না। অনলাইন থেকে নতুন ভোটারদের সাময়িক জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করা যায়। যেটি রঙ্গিণ পিডিএফ ফরমেটে থাকে। অনলাইন থেকে সাময়িক এনআইডি কার্ডটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট এবং লেমিনেটিং করে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যায়। 

কিন্ত স্মার্ট কার্ড তো প্রিন্ট করে লেমিনেটিং করার বস্তু না। কারণ স্মার্ট কার্ডের উপর মেশিন রিডএবল একটি চিপ বসানো থাকে যেখানে একজন ভোটারের প্রায় ২৮ প্রকার তথ্য সংরক্ষিত থাকে। সুতরাং, যারা বলেন স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করতে চাই তাদেরকে বলি স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করা তো যায়ই না বরং প্রশ্নটাই ভুল।

স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম কি? স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো এবং স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করা যায় কি না আশা করি এসব প্রশ্নের সঠিক তথ্য আপনাদেরকে দিতে পেরেছি। তারপরও যদি উক্ত প্রশ্নগুলো সম্পর্কে কারো কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টস করবেন। আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে অবশ্যই চেষ্টা করবো। লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করার অনুরোধ রইলো। সবাইকে ধন্যবাদ......!

আরো পড়ুনঃ নতুন ভোটার যারা স্মার্ট কার্ড পাননি তাদের জন্য পরামর্শ

4 মন্তব্যসমূহ

  1. আমার নাম সংশোধনের জন্য আবেদন করেছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ হয়ে গেছে, এখন ডাউনলোড কপি ছাড়া আসল ভোটার কার্ড অথবা সংশোধিত স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবো, যদি জানাতেন।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. নাম সংশোধন হওয়ার পর অনলাইন থেকে যে কপিটি ডাউনলোড করে নিয়েছেন সেটিই আসল কপি। অফিস থেকেও আপনাকে ওই কপিটাই প্রিন্ট করে লেমিনেটিং করে দেবে। আপনি চাইলে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ওই কপিটা সংগ্রহ করতে পারবেন। তাছাড়া এখন আর স্মার্ট কার্ড পাবেন না। ভবিষ্যতে আবেদন করে স্মার্ট কার্ড তোলার সুযোগ দিলে তখন আবেদন করে স্মার্ট কার্ড তুলে নিতে পারবেন।

      মুছুন
  2. বাবার এনআইডির ইংরেজি নাম আমাদের সার্টিফিকেট নামের সাথে আংশিক অমিল kaiyum এর স্থলে qayum আছে এখন বাবার নামটা এনআইডিতে পরিবর্তন করতে সবোচ্চ কত সময় লাগবে??

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. এনআইডি কার্ড সংশোধনের আবেদন কত দিনে নিষ্পত্তি হয় সেটা সঠিক করে কেউই বলতে পারবে না। এটা সম্পূর্ণই নির্ভর করে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার উপার। তিনি যখন আপনার কাজ করে দেবে ঠিক তখনই হবে। তার আগে যে যত কথাই বলুক সেটা মনগড়া কথা ছাড়া আর কিছুই না। তবে আনুমানিকভাবে বলা যেতে পারে এ ধরণের ভুল সংশোধন হতে ১০-১৫ দিন মত সময় লাগতে পারে। কখনো কখনো সময় একটু কম বা বেশি লাগতে পারে। আমাদের ওয়েবসাইটে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন কোথায় হয় - কিভাবে হয় - কত দিন লাগে এ সকল বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দেয়া হয়েছে প্রয়োজনে দেখে নিতে পারেন।

      মুছুন
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন
নবীনতর পূর্বতন