ভোটার এলাকা স্থানান্তর করার জন্য করণীয় ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসমূহ।

ভোটার এলাকা স্থানান্তর করার জন্য করণীয় ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসমূহ।

ভোটার এলাকা পরিবর্তন/ট্রান্সফার/স্থানান্তর করার নিয়ম
 
এমন অনেকেই আছেন যাদের ভোটার এলাকা স্থানান্তরে করার প্রয়োজন কিন্ত ভোটার এলাকা স্থানান্তর করার জন্য করণীয় কি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসমূহ কি কি সে বিষয়ে সঠিক ধারণা নেই। ভোটার এলাকা পরিবর্তন করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। যাদের ভোটার এলাকা স্থানান্তরের প্রয়োজন তারা অবশ্যই উল্লেখিত পরামর্শ আনুযায়ী আবেদন দাখিল করতে পারেন। 

মানুষ খুবই কর্মব্যস্ত জীব। দৈনন্দিনের প্রয়োজনীয়তার কারণে মানুষ সর্বদা নিজের স্থায়ী ঠিকানায় বসবাস করতে পারে না। এমন লক্ষ লক্ষ মানুষ আছে যারা লেখাপড়া বা চাকরী বা ব্যবস্য বা অন্য যে কোন প্রয়োজনের জন্য নিজ বাড়ী ছেড়ে দুর-দুরান্তে গিয়ে বসবাস করে থাকেন। ফলে তারা নিজের স্থায়ী ঠিকানায় ভোটার না হয়ে বর্তমান ঠিকানায় ভোটার হয়েছেন। যেহেতু সেটি তাদের অস্থায়ী ঠিকানা সেহেতু কখনো না কখনো তাদের ভোটার এলাকা স্থানান্তর করে স্থায়ী ঠিকানায় নিয়ে আসার প্রয়োজন হয়ে থাকে।

আপনি যে উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা, অর্থাৎ আপনি যে উপজেলায় স্থানান্তরিত হবেন সেই উপজেলার নির্বাচন অফিসে গিয়ে ভোটার এলাকা স্থানান্তর করার জন্য আবেদন করতে হবে। আবেদন ফরমের নাম ১৩ নং স্থানান্তর ফরম। ফরমটি অফিস থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে, অফিসের সামনে ফটোকপির দোকানেও স্থানান্তর ফরম ১৩ পাওয়া যেতে পারে। 

আবেদন ফরম পুরণ করার নিয়মঃ-
স্থানান্তর ফরম ১৩  হাতে পাওয়ার পর প্রথমে ভালোভাবে পড়ে দেখবেন। ফরম পূরণ করা খুবই সহজ তাছাড়া ফরম পুরণের জন্য নিম্নে বর্ণিত পরামর্শগুলো অনুসরণ করতে পারেন। 
 
ফরমের ১ নং ক্রমিকে আবেদনকারীর নাম লিখতে হবে বাংলায়। 
 
ফরমে ২ নং ক্রমিকে আবেদনকারীর এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর লিখতে হবে। 
 
ফরমের ৩ নং ক্রমিকে আবেদনকারীর জন্ম তারিখ লিখতে হবে। 
 
ফরমের ৪ নং ক্রমিক আপনি যে এলাকায় ভোটার ছিলেন সেই এলাকার ঠিকানা লিখতে হবে। ভোটার এলাকার নাম, ভোটার এলাকার নম্বর, উপজেলা/থানার নাম, জেলার নাম, গ্রাম/রাস্তার নাম ও নম্বর, বাসা/হোল্ডিং নম্বরসহ সবগুলো ফিল্ড পুরণ করবেন। তবে ভোটার নম্বর ও ভোটার এলাকার নম্বর যদি না জেনে থাকেন তাহলে লেখার দরকার নেই অথবা অফিস থেকে জেনে নিয়ে লিখতে পারেন। ভোটার এলাকার নাম এবং গ্রাম/রাস্তার নাম অধিকাংশ সময়ই একই হয়। ক্ষেত্র বিশেষ আংশিক বা সম্পূর্ণ আলাদা হতে পারে। তাই ভোটার এলাকার নামের স্থানে আপনার গ্রাম/রাস্তার নাম লিখে দিবেন।  
 
ফরমের ৫ নং ক্রমিকে আপনি যে ঠিকানায় ভোটার স্থানান্তর করাতে চা্ইছেন সেই এলাকার ঠিকানা লিখতে হবে। জেলার নাম, উপজেলার নাম, ইউনিয়ন/সিটি কর্পোরেশন/পৌরসভা/ক্যান্টঃ বোর্ড এর মধ্যে যেটির আন্ডারে আপনি স্থানান্তর হবেন সেটিতে টিক চিহ্ন দিবেন এবং পাশে ইউনিয়ন/সিটি কর্পোরেশন/পৌরসভা/ক্যান্টঃ বোর্ডের নাম লিখে দেবেন। তারপর আপনার ওয়ার্ড নম্বর, ভোটার এলাকার নাম, ভোটার এলাকার নম্বর, গ্রাম/রাস্তার নাম ও নম্বর, বাসা/হোল্ডিং নম্বর, মোবাইল নম্বর, ডাকঘর এবং পোষ্ট কোড লিখে দেবেন।

ভোটার এলাকার নাম ও গ্রামের নাম দুইটা আলাদা হতে পারে। আপনার সঠিক ভোটার এলাকা কোনটি না জানা থাকলে ওয়ার্ড মেম্বর বা এলাকার জনপ্রতিনিধীদের কাছ থেকে আপনার সঠিক ভোটার এলাকা কোনটি নিশ্চিত হয়ে নিবেন। ভোটার এলাকা ভুল হলে বা ৫ নং ক্রমিকে বর্ণিত তথ্যাদি যদি ভুল লিপিবদ্ধ হয় তাহলে সমস্ত কষ্টই বৃথা হয়ে যাবে। কারণ আপনার ভোটার তথ্য ভুল ঠিকানায় স্থানান্তর হয়ে যাবে। তাই যতদুর সম্ভব সাবধানতার সাথে ৫ নং ক্রমিক পূরণ করবেন। 

ফরমের ৬ নং ক্রমিকে বলা হয়েছে যে, ৫ নং ক্রমিকে বর্ণিত ঠিকানায় আপনি কতদিন যাবত বসবাস করছেন তা উল্লেখ করতে হবে। হতে পারে ৫নং ক্রমিকের ঠিকানা আপনার জন্মস্থান, হতে পারে ১ বছর বা ৩ বছর যাবত বসবাস করছেন (যার ক্ষেত্রে যেমনটি হবে তেমনটি লিখে দেবেন)। 

ফরমের ৭ নং ক্রমিকে বলা হচ্ছে, আপনি কেন ভোটার এলাকা স্থানান্তর করবেন। হতে পারে বৈবাহিক সূত্রে স্বামীর ঠিকানায় বসবাস করছেন বিধায় ভোটার স্থানান্তর করতে চান, বা এটিই আপনার স্থায়ী ঠিকানা বিধায় আপনি স্থায়ী ঠিকানায় ভোটার স্থানান্তর করাতে চান ইত্যাদি (যার ক্ষেত্রে যেমনটি হবে তেমনটি লিখে দেবেন)।

ফরমের পিছনের পাতায় আবেদনকারীর স্বাক্ষর বা টিপ সহি'র স্থানে কেবলমাত্র আবেদনকারীই সই করতে পারবে এবং আবেদনকারীর এনআইডি কার্ডে/ভোটার আইডি কার্ডে ছবির নিচে যেমন করে স্বাক্ষর করা আছে ঠিক তেমন করেই স্বাক্ষর করতে হবে। স্বাক্ষর আলাদা  হলে আবেদন বাতিল হতে পারে। 

আবেদনকারীকে সনাক্তকারীর স্বাক্ষরের স্থানে অবশ্যই একজন জনপ্রতিনিধী দ্বারা স্বাক্ষর করাতে হবে। যে কেউ সনাক্তকারীর স্থানে স্বাক্ষর করলে আবেদন বাতিল হতে পারে। সনাক্তকারী অবশ্যই তার স্বাক্ষর করবেন, এনআইডি নম্বর লিখবেন ও সীল ব্যবহার করবেন। 

আবেদনের সাথে যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবেঃ-
ফরমের ৮ নং ক্রমিকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের বিষয়ে উল্লেখ আছে। যাবতীয় কাগজপত্র আপনি যে ঠিকানায় ভোটার স্থানান্তর করে আনতে চাইছেন সেই ঠিকানার হতে হবে। 
 
যদি ইউনিয়নের আওতায় হয় তাহলে চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র লাগবে। পৌরসভা হলে পৌর মেয়র বা ওয়ার্ড কাউন্সিলরের প্রত্যয়নপত্র লাগবে। অথ্যাৎ একজন জনপ্রতিনিধী কর্তৃক প্রদত্ত প্রত্যয়নপত্র (যার ক্ষেত্রে যেটি প্রযোজ্য)। 

বাড়ীর বিদ্যুৎ বিল/গ্যাস বিলের কপি । (বাড়ীর যেকোন একজন সদস্যের নামীয় বিল হলেই হবে)। 
 
চৌকিদারী ট্যাক্স রশিদ/ পৌর করের রশিদ/বাড়ী ভাড়ার রশিদ এর মধ্যে যার যেটি আছে সেটি জমা দিতে হবে। (বাড়ীর যেকোন একজন সদস্যের নামীয় রশিদ হলেই হবে)। 
 
এবং আবেদনকারীর এনআইডি কার্ড/ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি।  

উল্লেখিত কাগজপত্র আবেদনর পিছনে পিনআপ করে উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দিবেন। অফিস থেকে আপনাকে আবেদনের নিচের অংশ কেটে দেবে সেটি যত্ন করে রেখে দেবেন। পরবর্তীতে অফিসে গেলে অবশ্যই আপনকে দেয়া স্লিপটি সঙ্গে নিয়ে যাবেন। যখনই আপনার আবেদনের কাজ শুরু হবে আপনার মোবাইলে ম্যাসেজের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে। 

প্রথম ম্যাসেজ পাওয়ার পরে আপনার কোন কিছুই করণীয় নেই। যখন দ্বিতীয় ম্যাসেজ যাবে সেটি পড়ে দেখবেন। সেখানে আপনার আবেদন অনুমোদন হয়েছে নাকি বাতিল হয়েছে নাকি আরো কাজগপত্র লাগেব সে বিষয়ে উল্লেখ থাকবে। ম্যাসেজে যদি আবেদন অনুমোদনের কথা বলা থাকলে বুঝবেন আপনার ভোটার এলাকা স্থানান্তর হয়ে গেছে তাই শুধু শুধু অফিসে গিয়ে খোজ নেয়ার দরকার নেই ।

আর যদি এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে কোন ম্যাসেজ না আসে তাহলে স্লিপটি নিয়ে অবশ্যই উপজেলা নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করবেন।

ভোটার এলাকা স্থানান্তরের আবেদন অনুমোদন হয়ে গেলে আপনি ওই এলাকার ভোটার হয়ে যাবেন এবং পরবর্তীতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে ভোট দিতে পারবেন। তবে ভোটার এলাকা স্থানান্তর করলে অফিস থেকে আপনাকে নতুন কোন এনআইডি কার্ড দেবে না। ভোটার এলাকা স্থানান্তর হওয়ার পর অনলাইনে/অফিসে রিইস্যুর আবেদন/এনআইডি কার্ড উত্তোলনের আবেদন করে এনআইডি কার্ড সংগ্রহ করতে হবে।

ভোটার এলাকা পরিবর্তনের বিষয়ে যদি কারো কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে কমেন্টস করবেন। আপনারদের প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো। পোষ্টটি ভালো লাগলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করার অনুরোধ রইলো।

14 মন্তব্যসমূহ

  1. ভাই আমি অনলাইন এ স্থানান্তর করবো রকম লিংক হবে কি ।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. এখন পর্যন্ত ভোটার এলাকা স্থানান্তরের আবেদন অনলাইনে করা যায় না। ভবিষ্যতে এ নিয়ম চালু হতে পারে। আপাতত উল্লেখিত উপায়ে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে আবেদন করতে হবে।

      মুছুন
  2. ভোটার আইডি কার্ড পরিবর্তন করতে কত টাকা লগতে পারে

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. ভোটার আইডি কার্ড পরিবর্তন নয়.. ওটা ভোটার এলাকা পরিবর্তন হবে। যাই হোক, ভোটার এলাকা পরিবর্তনের কোন সরকারি ফি নেই, এটা সস্পূর্ণ ফ্রি।

      মুছুন
  3. আমি স্থায়ী ঠিকানা পরির্বতন করে বর্তমান ঠিকানায় ভোটার হয়েছিলাম। ২ বছরের জন্য সাময়িক ভোটার আইডি কার্ড দেয়। সেটার মেয়াদ শেষ। আমি আবার আমার পূর্বের ঠিকানায় ফিরে যেতে চাই। এটা করতে কি করতে হবে। বর্তমানের সাময়িক NID ক্যানসিল করে পূর্বের স্থায়ী ঠিকানায় আসতে পারবো কি?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. হ্যা, যে ঠিকানায় ফিরে যেতে যান সেই ঠিকানার নির্বাচন অফিসে গিয়ে স্থানান্তরের আবেদন করেরন। স্থানান্তর হয়ে গেলে এনআইডি রিস্যুর আবেদন করে পুনরায় একটি কার্ড তুলে নিবেন।

      মুছুন
  4. দাদা স্থান চেঞ্জ করে কি কোন সরকারী প্রশাসনিক চাকুরিজিবী তার পুর্ব ঠিকানায় বদলি নিতে পারবে?
    আমি ক্লিয়াএ করে বলি ধরুন আপনার স্থায়ি বাসা বগুরায় আপনি বিসিএস প্রশাসন ক্যাডার হইছেন কিন্ত আপনাকে কখনোই আর বগুড়ায় বদলি করবে না সরকার কিন্ত আপনি যদি এই ভাবে আপনার ভোটার আইডির স্থান চেঞ্জ করে সরকার কে দেখাইলেন আপনার বাসা নাটর বা সিরাজগঞ্জ তখন কি আপনাকে বগুড়ায় ট্রান্সফার করবে ???

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. আপনি ভোটার স্থানান্তর করে দেশের যেকোন স্থানে স্থানান্তরিত হতে পারেন। কিন্ত স্থায়ী ঠিকানা অন্য কোথাও দেখিয়ে মূল স্থায়ী ঠিকানায় চাকরিজনীত বদলী হতে পারবেন কিনা সে বিষয়ে সঠিক তথ্য আমি দিতে পারছি না। ভোটার স্থানান্তরের মাধ্যমে আপনার স্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তন হলেও আপনার সার্ভিস বইয়ে উল্লেখিত স্থায়ী ঠিকানা কিন্ত পরিবর্তণ হবে না। সেক্ষেত্রে আপনাকে আপনার পূর্বের স্থায়ী ঠিকানায় বদলী নাও করতে পারে।

      মুছুন
  5. আপনার উত্তরে আমি খুবিই উপকৃত জনাব।
    যদি আপনার মর্জি হয় তো আমার শেষ প্রশ্নখানার উত্তর দেবেন। 🙏
    উদাহরণ দেই ধরুন আমি অনার্স পড়ুয়া ছাত্র। স্থায়ি ঠিকানা নাটর জেলায় অলরেডি এখানকার ভোটার। ভোটও দিয়েছি। কিন্ত ডিফেন্সে চাকরির এক্সাম না দিতেই বা অনার্স শেষ নাই হতে ভোটারের এলাকা কুষ্টিয়ায় স্থানান্তরিত করিলাম এবং কুষ্টিয়ার ঠিকানা দেখাইয়া চাকরিতে জয়েন করিলাম। এমতাবস্থায় আমার সার্ভিভিস বুকে কোন জেলা থাকিবে নাটর নাকি কুষ্টিয়া আর আমার কি ডিফেন্স বা প্রশাসন কর্মকর্তা হইয়াও নাটরে আসতে সমস্যা হবে কি?
    পূর্বের ঠিকানা এখানে কেমন গুরুত্ববাহী?
    প্লিজ জনাব জানাবেন।

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. চাকরির আবেদনপত্রে স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা যদি কুষ্টিয়া উল্লেখ করেন এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ঠিকনাও যদি কুষ্টিয়া হয় তাহলে চাকরি বইতেও আপনার ঠিকানা কুষ্টিয়া লেখা থাকবে। সেক্ষেত্রে আপনার পোষ্টিং নাটোর হতে পারে। কিন্ত এনআইডি কার্ডে জন্মস্থান বা জন্ম জেলা যদি নাটোর উল্লেখ থাকে তাহলে আপনার পোষ্টিং নাটোর নাও হতে পারে।
      তবে আমার ব্যক্তিগত একটা পরামর্শ দেই এই যে, নিজ জেলায় চাকরি করতে যাবে না। এতে সুবিধার চেয়ে অসুবিধা বেশি।

      মুছুন
  6. যদি স্থায়ী ঠিকানা এক ওয়ার্ড হয় অন্য ওয়ার্ডের ভোটার হওয়া যাবে কি?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. স্থায়ী ঠিকানা ব্যতিত অন্য ওয়ার্ডের ভোটার হতে গেলে সেই ওয়ার্ডের ঠিকানার স্বপক্ষে কাগজপত্র জমা দিতে হয়। যদি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে পারেন তাহলে হতে পারবেন।

      মুছুন
  7. আমার এনআইডি কার্ড স্থানান্তর হয়েছে তার এসএমএস এসেছে,,, কিন্তু এখন আমাকে কি করতে হবে?

    উত্তরমুছুন
    উত্তরগুলি
    1. ভোটার স্থানান্তর হয়ে গেলে নতুন ঠিকানার একটি কার্ড উত্তোলন করে নিতে হবে। তাছাড়া আর কোন কাজ নেই। অনলাইনে রিইস্যুর আবেদন করে খুব সহজেই একটি নতুন এনআইডি কার্ড উত্তোলন করে নিতে পারবেন।

      মুছুন
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন
নবীনতর পূর্বতন